পঞ্চগরে যখন বাস থেকে নামলাম
ঝিরিঝিরি বৃষ্টি হচ্ছে

দেবীগঞ্জ যাওয়ার জন্য রওনা দিলাম.
দেবীগঞ্জ যখন পৌছাই রাত ৯ টার বেশি বাজে

চারপাশ অন্ধকার ,
রাতের খাবার খেয়ে হোটেল এ উঠলাম.
গল্প করতে করতে ঘুমিয়ে পরলাম‌.
সকালে যখন ঘুম থেকে উঠে বারান্দায় গিয়ে দেখলাম মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে.
আবার ঘুমিয়ে পরলাম‌ 😴😴

যখন ঘুম ভাঙলো ৯ টার বেশি বাজে
ফ্রেশ হয়ে, নাস্তা করে আশেপাশে ঘুরে দেখার জন্য হাটা শুরু করলাম.

পহেলা বৈশাখ
সবাই নতুন পোষাক পরে দলে দলে ঘুরে বেরাচ্ছে.😍

করতোয়া নদীতে যখন পৌছালাম
নদীতে পানি নেই মাঝনদীতে ধানের চারা লাগিয়েছে কৃষকেরা.
আশেপাশে তেমন ভালো কোন প্লেস না পাওয়ায় বুকভরা কষ্ট নিয়ে দেবীগঞ্জ ত্যাগ করলাম😔

চলে আসলাম নীলসাগর.

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে দীঘির গেটের বাইরে মেলা বসেছে .

টিকিট কেটে ভেতরে ঢুকলাম

দীঘিতে বর্ষি দিয়ে মাছধরার প্রতিযোগিতা চলছে🐟🐟.

নওগা,বগুড়া থেকে গাড়ি ভাড়া করে লোকজন এসেছে মাছ ধরতে.

দীঘির পানিতে গোসল করে আশেপাশে একটু হাটাহাটি করে সেখান বের হয়ে
সৈয়দপুর চলে আসলাম

সৈয়দপুর নেমে বাসের টিকিট কাটলাম
বাস রাত ১১.৩০ এ
হাতে অনেক সময়
সিদ্ধান্ত নিলাম হেটে হেটে ঘুরে দেখবো সৈয়দপুর শহরটা .
হাটতে হাটতে চলে আসলাম সৈয়দপুর ট্রেন স্টেশন সরকারি ছুটির দিন হওয়ায়
রেলকারখানা বন্ধ ছিলো 🙁.
হাটতে হাটতে গ্রামের মধ্যে ঢুকেপরলাম
সবুজের সমারোহ 😍😍
ধানক্ষেতের সবুজ , পড়ন্ত বিকেলের মিষ্টি হাওয়া যে কারো মনকে শান্ত করে তুলবে

স্থানীয় ছেলেদের সাথে ক্রিকেট খেললাম কিছুসময় 🏏🏏

গ্রাম থেকে পুনরায় শহরে ফিরে আসলাম
ম্যাপ দেখতে দেখতে চলে আসলাম চিনি মসজিদ
মসজিদের বারান্দায় বসে বিশ্রাম নিলাম 
মসজিদের অপোজিট সাইডে জায়গা না থাকায় মসজিদের ভালো ছবি তুলতে পারি নি.😐
সুনিপুন কারুকার্জে সজ্জিত অনেকগুলো মিনারা সম্বলিত মসজিদ , অনেক সুন্দর একটি প্রাচীন স্থাপনা..
মসজিদ থেকে পুনরায় সৈয়দপুর বাজারে চলে আসলাম.

সন্ধ্যার পর সৈয়দপুর বিমানবন্দর , ক্যান্টনমেন্ট, টেকনিক্যাল কলেজ ঘুরে আসলাম
ক্যান্টনমেন্ট এবং বিমানবন্দরের ভেতরে ঢুকতে পারি নি 🙁🙁
ল্যাম্পপোস্টের আলোতে বাজার থেকে বিমানবন্দরের যাওয়ার রাস্তা 😍😍

বিমানবন্দর থেকে ফিরে তাজিরউদ্দিনে রাতের খাবার খেয়ে নেই 
খাবারের স্বাদ ১০/১০

*টিকিট কাউন্টারে ম্যানেজার যখন স্থানীয় একজনের সাথে কথা বলছিলাম তার কথা শুনে প্রথমে একটু অবাক হয়ে ছিলাম
তার ভাষা বোঝার চেষ্টা করলাম কিছু কিছু বুঝলাম
তিনিই আবার আমাদের সাথে বাংলায় কথা বললেন
পরে আরো যতমানুষের সাথে কথা হলো তারা আমাদের সাথে কথা বলে বাংলা ভাষায়
নিজেদের মধ্যে বিহারি ভাষায় কথা বলছিলো.
এবিষয়ে কথা বললাম এক তরমুজ বিক্রেতার সাথে উনি জানালেন সৈয়দপুরের অধিকাংশ মানুষই বিহারি
কথা হলো এক ভ্যানচালক ভাইয়ের সাথে তিনি বললেন সৈয়দপুরের ৭৫% লোক বিহারি
শুনে বেশ অবাকই হলাম

সবুজ শ্যামল পরিবেশ , বিশুদ্ধ অক্সিজেনের মায়া ত্যাগ করে যান্ত্রিক নগরীর দিকে প্রত্যাগমন করলাম 😩😩

ভাড়া ও ব্যাবহৃত যানবাহন
পঞ্চগর থেকে বোদা বাসস্ট্যান্ড 30/- বাস
বোদা বাসস্ট্যান্ড থেকে দেবীগঞ্জ বাজার 35-40/- মাহেন্দ্রা
দেবীগঞ্জ থেকে নীলসাগর 35/- অটো
নীলসাগর থেকে নীলফামারি 35/- অটো
নীলফামারি থেকে সৈয়দপুর 25/- অটো
সৈয়দপুর বাজার থেকে বিমানবন্দর 10/- ভ্যান

*গুছিয়ে লিখতে পারি না সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী

1.নিজের চারপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন ,
2.স্থানীয় মানুষগুলো খুব সাদাসিধে
সকলের সাথে ভালো ব্যাবহার করুন
3.এ সকল ট্যুর কয়েকজন মিলে দেবার চেষ্টা করুন , তাছাড়া ভালো লাগবে না
4.ছবিগুলো তোলা ভালো হয় নি
সেজন্য সকলের কাছে পুনরায় ক্ষমাপ্রার্থী😔